Home / শিক্ষা / ক্যারিয়ার / ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং কি?

‘ফ্রিল্যান্স’ শব্দটি শতাব্দী পুরনো। সেই সময় শব্দটির অর্থ ছিল ‘ভাড়াটে সৈনিক বা কর্মী’ যারা কোনো সামরিক বাহিনীর হয়ে যুদ্ধ করতো। এরপর শব্দটি পত্র-পত্রিকার সাথে ব্যবহৃত হতো। পত্র-পত্রিকায় এর অর্থ ছিল ‘কোন নির্দিষ্ট পত্র-পত্রিকার সাথে যুক্ত নন এমন ব্যক্তি’ । অর্থাৎ যে ব্যক্তি খবর সংগ্রহ করে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় সরবরাহ করতো তাদের বুঝাতো। একে ফ্রিল্যান্স-জার্নালিস্ট/করসপন্ডেন্টও/ফটোগ্রাফার বলে। তবে বর্তমানে প্রচলিত ‘ফ্রিল্যান্সিং’ এর অর্থ কিছুটা ভিন্ন। ফ্রিল্যান্সিং হলো কোন এক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের আওতায় স্থায়ীভাবে চুক্তিবদ্ধ না হয়ে একাধিক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের জন্য অনলাইনভিত্তিক কাজ করা।

ফ্রিল্যান্সিংকে ‘মুক্তপেশা’ (Independent Profession) বলা হয়। যারা ফ্র্যিলান্সিং করে তাদের ‘ফ্রিল্যান্সার’ বলা হয় (Independent Worker, Independent Contractor)। আবার ফ্রিল্যান্সিং বলতে স্ব-নিযুক্ত ব্যক্তি ও তার কাজকে বুঝায় (self-employed)। সেলফড এমপ্লয়ড বা যে নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করে। যে ব্যক্তি নিজের দক্ষতা বা সেবা একাধিক ক্রেতার নিকট বিক্রি করে। তবে এটি হয়ে থাকে কোনো একটি ওয়েব প্লাটফর্মে বা ওয়েব সাইটের মাধ্যমে। অনলাইনের মাধ্যমে সকল প্রক্রিয়া সম্পাদন হয় বলে ফ্রিল্যান্সিংকে ‘অনলাইন প্রফেশনও’ বলা হয়।

অন্যভাবে বলা যায়, ফ্রিল্যান্সিং হলো অনলাইন বা ইন্টানেটে কাজের বাজার। এখানে নানা ধরনের কাজ থাকে। যেমন- ওয়েব সাইট ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, প্রোগ্রামিং, ডাটা এন্ট্রি, ফটো এডিটিং, অ্যানিমেশন তৈরি, ছবিতে ইফেক্ট দেওয়া, অনুবাদ, টেকনিক্যাল লেখা, ছবি তোলা, অ্যাপস-সফটওয়্যার তৈরি, অডিও ও ভিডিও এডিটিং ইত্যাদি। যার দক্ষতা ও যোগ্যতা থাকবে সে করবে। প্রতিটি কাজই ফ্রিল্যান্সিং। এর কাজের কোনো শেষ নেই। তবে ক্লিক করে আয় করা কিংবা গ্যামলিং করা ফ্রিল্যান্সিং নয়। এখানে ইন্টারনেট বলতে মূলত ওয়েবসাইট বুঝায়। অর্থাৎ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বিভিন্ন ব্যক্তি বা কোম্পানির চাহিদাযুক্ত বা শর্তযুক্ত কাজের অর্ডার থাাকে বা কাজ উন্মুক্ত থাকে। যারা তা পারে তারা ঐসব কাজের জন্য বিড করে কিংবা সরাসরি কাজটির নমুনা দেখায়। যার কাজ ভালো হয় তার থেকে কাজটি কেনা হয় বা কাজটি করার অর্ডার দেওয়া হয়। অনলাইন ফ্রিল্যান্সিংয়ে কোনো কাজ ক্লায়েন্ট অনলাইনের মাধ্যমে আপনাকে দিবে। আপনি সে কাজে চুক্তিবদ্ধ হবেন, নিজের দক্ষতা দিয়ে কাজটা করবেন, আর সেটা অনলাইনের মাধ্যমেই ক্লায়েন্টকে ডেলিভার করবেন, আর ক্লায়েন্ট অনলাইনের মাধ্যমেই আপনাকে পেমেন্ট করবে। এখানে অনলাইন একটি যোগাযোগের মাধ্যম।

ফ্রিল্যান্সিং অনলাইন ও অফলাইন উভয়েই হতে পারে। তবে বিশ্বে অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং বেশি জনপ্রিয়। এর অন্যতম কারণ বিশ্বের অসংখ্য কাজের সম্ভাবনা থাকে। এখানে যেমন বিশ্বব্যাপী অসংখ্য মালিক/বায়ার থাকে তেমনি অসংখ্যা কর্মী থাকে। আর এর আওতাধীন সকল কাজই ভার্চুয়াল বা আনলাইনভিত্তিক।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*